जुलाई 11, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। ডলার ধীরে ধীরে দুর্বল হচ্ছে, জোড়াটি গত সপ্তাহে 1.1240 পিভট পয়েন্টের ওপরে গিয়েছিল, কিন্তু এখনও পাঁচ-সপ্তাহের চ্যানেল 1.1170-1.1350-এ রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের 25 শতাংশ যেমন আশা করেছেন, বুল চেষ্টা করেছিল 1.1400 স্তরে পৌঁছনোর, কিন্তু তাদের আক্রমণ দ্রুত স্খলিত হয়, এবং তারপর, 1.1370 উচ্চতায় গিয়ে জোড়াটির ফের পতন ঘটে, পাঁচ-দিনের পর্ব শেষ করে 1.1300 অঞ্চলে।
    মার্কিন কারেন্সির ওপর চাপ ব্যাখ্যা করা যায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন দেশের আর্থিক পরিস্থিতির উন্নয়ন দ্বারা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো নয়, অন্যান্য জায়গায় ব্যবসার কাজ শুরু হয়েছে, চাহিদা পুনরুদ্ধার হচ্ছে, ক্রেতারা দোকানে ফিরছেন, আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এমনকি ফেড কর্মীরাও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন যে অর্থনীতির পুনরুদ্ধার দ্রুত করার সামর্থ্য প্রসঙ্গে। এফওএমসি সদস্য রোজেনগ্রেন ও বার্কিং এটা বলেছেন, পুরনো অর্ডার পূরণ করলেও শিল্প এখনও পর্যন্ত নতুন কিছু পায়নি। আর এটা আরও ডলার ছাপানো দিকে নিয়ে যাবে ও কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং (কিউই) বৃদ্ধি করবে।
    এসবই আসছে কোভিড-19 অতিমারির নতুন ঢেউয়ের মধ্যে। বুধবার, 8 জুলাই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সংক্রমণ নতুন শীর্ষ ছুঁয়েছে, 60 হাজার মানুষ। গড় হারের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা হয়েছে দ্বিগুণ, দৈনিক 1000, যা মার্কেট অংশগ্রহণকারীদের নিরাশা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ।
    উলটোদিকে, ইউরোর অবস্থা ভালো, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অতিমারি পরিস্থিতি এবং যোগ্য মানিটারি ও ফিসকাল নীতিকে ধন্যবাদ। ইউরোপের জন্য সমর্থন দ্রুত হারে বাড়ছে য়ুয়ানের দ্রুত বৃদ্ধি দ্বারা এবং ঠিক উলটোদিকে রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আরও স্পষ্ট করে, তাঁর পতনের হারের জন্য তিনি এখন চীনের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধে এগোচ্ছেন না। এবং যদি ডেমোক্র্যাট জো বিডেন নতুন প্রেসিডেন্ট হন, তাহলে চীনের প্রতি ওয়াশিংটনের নীতি নাটকীয়ভাবে পরিবর্তন হতে পারে, যাতে চীনের আরও বৃদ্ধি হতে পারে এবং পরিস্থিতির পারম্পর্যে ইউরোপিয়ান অর্থনীতিরও।
  • জিবিপি/ইউএসডি। অনুমানের শেষ ইস্যুতে আমরা বিস্ময় প্রকাশ করেছিলাম যে পাউন্ডের বৃদ্ধিকে স্বল্পস্থায়ী সংশোধন নাকি প্রবণতার গুরুতর ঘুরে দাঁড়ানো হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। ইন্ডিকেটরদের অধিকাংশই, গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের সঙ্গে, জোড়াটির আরও আরোহণের ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন। 50 শতাংশ বিশেষজ্ঞও এর উত্তর দিকে গতিবিধির পক্ষে, 30 শতাংশ বলেছেন, লিমিটার হিসেবে 1.2680 রেজিস্ট্যান্স থাকবে। এবং তাঁরা ছিলেন সঠিক, জোড়াটির সপ্তাহের উচ্চতা ছিল 1.2670 এরপর সামান্য নীচে আসে এবং 1.2625-এ শেষ করে।
    ডলারের বিস্তৃত দুর্বলতার ফলে পাউন্ডের বিকাশ সম্ভব হয়েছে (উপরে এর কারণের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে), এর পাশাপাশি ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের সরে আসার বিষয়ে বোঝাপড়া মাঝারি আশা দিয়েছে।
  • মার্কিন ডলার /জেপিওয়াই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রদেশগুলির মতো টোকিওতেও করোনা ভাইরাস কেসের রেকর্ড হয়েছে। যদিও এটা এখন পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য খুব একটা উদ্বেগের বিষয় নয়, বিশেষ করে যখন যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামের জন্য প্রকৃত অর্ডারের ডেটা যা এই সপ্তাহে জানা গেছে, অনুমানের চেয়ে ছিল উচ্চতর, যা ইঙ্গিত দেয় জাপানের অর্থনীতির সামান্য পুনরুদ্ধার হয়েছে।
    ডলারের সাধারণ দুর্বলতার প্রেক্ষাপটে, ইয়েন নিজের অবস্থান কিছুটা শক্তিশালী করতে সমর্থ হয়েছিল, সপ্তাহ শুরু করেছিল 107.50 থেকে, জোড়াটি শুক্রবার সন্ধ্যায় পৌঁছয় 106.65 দিগন্তে। সপ্তাহের শেষে ছিল 106.90।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। কয়েক মাস আগে, আলোচনার প্রধান বিষয় ছিল বিটকয়েনকে কি নিরাপদ স্বর্গ সম্পদ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে, এখন স্টক মার্কেটের সঙ্গে প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির সমন্বয়ের বিষয়টি ধারাবাহিকভাবে আলোচিত হচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, স্কিউ পোর্টাল হিসেব করেছে যে বিটকয়েন ও S&P500 সূচকের মধ্যে সম্পর্ক এখন পৌঁছেছে ঐতিহাসিক উচ্চতায় এবং বর্তমানে সহ-কার্যকারিতা প্রায় 66 শতাংশ। পোর্টাল বিশ্লেষণ অনুযায়ী, এর অর্থ যে ঐতিহ্যবাহী ফিনান্সের অ্যান্টিথিসিস হয়ে উঠতে ব্যর্থ হয়েছে বিটকয়েন এবং এগুলির সঙ্গে একই গতিতে চলছে। কেউ এমনকি বিটকয়েনকে বলেছেন, ‘স্টক মার্কেট স্টার্টআপ’।
    এতে একটি নির্দিষ্ট যুক্তি আছে, স্টক ও ক্রিপ্টো, উভয় মার্কেটের ফিনান্সিঙের প্রধান উৎস গত কয়েক মাসে ছিল সেন্ট্রাল ব্যাংক, এবং সর্বপ্রথমে, ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ, যা অর্থনীতিকে ডুবিয়েছে প্রচুর পরিমাণে সস্তা টাকায়।
    কিন্তু যদি আপনি গ্রাফের দিকে তাকান, একটি সম্পূর্ণ পৃথক চিত্র ফুটে ওঠে। মে থেকে বিটিসি-র হাভিং, S&P500 সূচক প্রায় ৯ শতাংশ উঠেছে, নাসডাক 100 উঠেছে 19 শতাংশ, কিন্তু বিটকয়েন 10000 ডলারের ওপর পা রাখতে পারেনি, পড়ে গেছে এবং এটি বর্তমানে জমাট বেঁধেছে 9000-9500 ডলার অঞ্চলে। তাহলে সমন্বয় কোথায়?
    স্টক মার্কেটের মতো নয়, বিটকয়েনকে এই মুহূর্তে সবচেয়ে আকর্ষণীয় সম্পদ মনে হচ্ছে না, সব ধরনের ক্রিপ্টো গুরুর সমর্থন সত্ত্বেও। প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি ধারাবাহিকভাবে প্রচুর পরিমাণে এনার্জি ভোগ করে, এবং এর বর্তমানে মূল্যে, এটি সমর্থন হারিয়েছে এমনকি মাইনারদের থেকেও, কোইনডেস্ক অনুমান অনুযায়ী জুনে 26 শতাংশ পতন হয়েছে।
    ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন গত সপ্তাহে সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে, পৌঁছেছে 269 বিলিয়ন ডলারে, এবং সেখানে ফিরে এসেছে যেখানে এটি ইতিমধ্যে ছিল 22 ও 24 জুনে। বিটকয়েনের ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্স গোটা সপ্তাহে পরিবর্তন হয়নি, এর তির এখনও 41-এ আছে।
    প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির এই শ্লথতা অল্টকয়েনের হাতে হয়েছে, বিশেষ করে এক বা দুবছর আগে এগুলি কেনার চেয়ে এখন এগুলি কেনা অনেক সহজ হয়েছে। এবং যদি 15 মে-তে ক্রিপ্টো মার্কেটে বিটকয়েনের শেয়ার ছিল 69.81 শতাংশ, এখন এটি নেমে এসেছে 62.79 শতাংশে। যার অর্থ, দুমাসের কম সময়ে, পতন 7.02 শতাংশ চরম পরিভাষায় এবং 10 শতাংশ তুলনামূলক পরিভাষায়।
    বিটিসি-র মতো নয়, জুলাইয়ে অনেক বিটকয়েন আশাপ্রদ বৃদ্ধি দেখিয়েছে, এবং এটা বিনিয়োগকারীদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। যেমন, ইথেরিয়ামের (ইটিএইচ/মার্কিন ডলার) বৃদ্ধি 7 জুলাইয়ে ছিল প্রায় 10 শতাংশ রিপলের (এক্সআরপি/মার্কিন ডলার) 20 শতাংশ, কার্ডানো –  34 শতাংশ। রেকর্ডধারী ছিল ডোগকয়েন, যা যোগ করেছিল 79 শতাংশ টিকটক ও ভেচেইনের ভাইরাল ভিডিয়োর পর 101 শতাংশে।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। যদি আগে বিনিয়োগকারীদের প্রধান রেফারেন্স পয়েন্ট ছিল ইউএস স্টক মার্কেট, এখন সবকিছু বদলে গেছে। জুলাইয়ের শুরুতে, বলকে সবাই উড়িয়ে দেয়নি, কিন্তু আমেরিকান S&P500 দিয়েছিল, কিন্তু চাইনিজ শাংহাই কম্পোজিটও দিয়েছিল। এবং যদি ইউরোপিয়ান অর্থনীতির চেয়ে বেশি দ্রুত মার্কিন অর্থনীতি বৃদ্ধি পেত, চীনের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধের দ্বারা, তাহলে সবকিছু 180 ডিগ্রি ঘুরে যেত। এখন ফেডের সুদের হার বৃদ্ধির, প্রতিদ্বন্দ্বী কারেন্সগুলির চেয়ে ডলারকে আরও আকর্ষণীয় করার কোনো ক্ষমতা নেই। মার্কিন অর্থনীতির ওপর কালো মেঘ হল প্রচুর ঋণ পরিশোধ করা হচ্ছে না, যা হল এর বৃদ্ধির প্রধান চালক।
    ডলার সূচক ইতিমধ্যে ফিরেছে জুনের নিম্নতম জায়গায়, জুলাইয়ের প্রথম দিকে হারিয়েছে 1.4 শতাংশ, এবং এই প্রবণতা দীর্ঘমেয়াদি হওয়ার আশঙ্কা। কয়েকজন বিশেষজ্ঞের মতে, কয়েক বছরের মধ্যে মার্কিন কারেন্সির 20 শতাংশ পর্যন্ত পতন ঘটতে পারে, 2014 থেকে যতটা উপরে উঠেছিল তার প্রায় সবটাই হারাতে পারে।
    11টি বৃহত্তম মার্কিন ব্যাংকের ইঙ্গিতের গড় অনুমান ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া 2020-এর শেষে থাকবে 1.1500-এ। ডলারকে শক্তিশালী এবং জোড়াটিকে 1.0500-তে নামানোর পক্ষে ছিল ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক মেরিল লিঞ্চ। এই অনুমানের কারণ ছিল ইসিবি-র কোয়ান্টিটিটেভ ইজিং কর্মসূচির 400-600 বিলিয়ন পাউন্ডর সম্প্রসারণের প্রত্যাশা।
    যদি আমরা আগামী দিনগুলির ভবিষ্যদ্বাণী সম্পর্কে কথা বলি, ব্লুমবার্গ প্রবাবিলিটি ক্যালকুলেটর অনুযায়ী, বাজারের বিকল্প অধ্যয়নের ভিত্তিতে, ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়ার ভালো সুযোগ আছে 1.1500-এর ওপরে ওঠার তারপর 1.1200-র নীচে চলে যাওয়ার। D1-এ 80 শতাংশ অসিলেটর এবং 95 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের রংও সবুজ। বাকি ১৫ শতাংশ অসিলেটর সংকেত দিয়েছেন যে জোড়াটি অতিরিক্ত-ক্রীত।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। এই সপ্তাহে, আমরা আশা করি : সোমবার, 13 জুলাই, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের প্রধান অ্যান্ড্রু বেইলির বিবৃতি, মঙ্গলবার – জিডিপির-র ডেটা, বুধবার – বর্তমান উপভোক্তা বাজারের ওপর এবং বৃহস্পতিবার – যুক্তরাজের লেবার মার্কেটের ওপর। বিশেষ নজর দেওয়া উচিত মঙ্গলবার, 14 জুলাই : প্রাথমিক অনুমান অুযায়ী, মে মাসে জিডিপি বৃদ্ধি হতে পারে 5 শতাংশ এক মাস আগে 20.4 শতাংশ পতনের তুলনায়। এবং যদি অনুমান সঠিক প্রমাণ হয়, এটা ব্রিটিশ অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করতে পারে।
    এর বৃদ্ধি আশা করেছেন H4-এ 65 শতাংশ বিশেষজ্ঞ, 80 শতাংশ অসিলেটর এবং 90 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর, এর পাশাপাশি D1-এ 85 শতাংশ অসিলেটর এবং 95 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর। মূল লক্ষ্য হল 10 জুনের উচ্চতা, 1.2810-এ পৌঁছনো, রেজিস্ট্যান্স লেভেল 1.2670 এবং 1.2740।
    বিপরীত মতামত দিয়েছেন 35 শতাংশ বিশ্লেষক এবং H4-এ বাকি অসিলেটরের রং লাল এবং রয়েছে D1-এ অতিরিক্ত-বিক্রীত অঞ্চলে।
    এটা স্মরণে রাখা উচিত যে যখন কোনো সাপ্তাহিক থেকে মাসিক অনুমানে যাওয়া হয়, বিশেষজ্ঞদের মধ্যে বিয়ার সমর্থকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায় 60 শতাংশে। লক্ষ্য হল জোড়াটির 1.2250-1.2400 অঞ্চলে ফেরার।

  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। 2-5 জুনে একটি রিলিজ ছাড়া, জোড়াটি আনুভূমিক করিডোরে চলাফেরা করছে, 106.00-108.10, 13 সপ্তাহ ধরে, এবং বিশেষজ্ঞের মতে, এই সীমা ছেড়ে এখনও যাচ্ছে না। পাশাপাশি, 70 শতাংশ বিশ্লেষকের মত হল ইয়েন আরও শক্তিশালী হবে এবং করিডোরের নিম্ন সীমায় জোড়াটির হ্রাস ঘটবে, যা সমর্থন করেছে H4-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস, এবং 30 শতাংশ উচ্চতর সীমায় এর বিকাশের পক্ষে। H4 এবং D1 উভয়ের অসিলেটরদের 80 শতাংশের রং লাল, ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের 95 শতাংশ।
    গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে, ব্যাংক অব জাপান সিদ্ধান্ত নেবে সুদের হারের, 15 জুলাই, বুধবার, এরপর এর ম্যানেজমেন্ট একটি সাংবাদিক সম্মেলন করবে। যদিও এর জন্য কোনো বিস্ময় অপেক্ষা করছে না এবং হার থাকবে -0.1% স্তরে নেতিবাচক।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। বরাবরের মতো, মার্কেটের গুরুরা বিটকয়েনের আরোহণ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণীর প্রতিযোগিতা করছেন। সেজন্য ব্লুমবার্গ এজেন্সি থেকে গবেষকদের একটি দল একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন, যার মতে, আশা করা হচ্ছে নিকট ভবিষ্যতে বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়া পৌঁছবে 12000 ডলারে। মনে রাখতে হবে যে ব্লুমবার্গ বিশ্লেষকদের মধ্যে মাইক ম্যাকগ্লোন হলেন বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সির একজন সরব সমর্থক। তিনি জুনে বলেছিলেন যে বিটিসি জার্ক আসন্ন, যার ফলে বছরের শেষে এটি মানসিক মাইলফলক 20000 ডলার অতিক্রম করবে।
    - নেক্সো ক্রেডিট প্ল্যাটফর্ম-এর ম্যানেজিং পার্টনার অ্যান্থনি ট্রেঞ্চেভ আরও আশাবাদী অনুমান করেছেন। তাঁর মতে, কয়েক মাসের মধ্যেই বিটকয়েনের মূল্য 50000 ডলার অতিক্রম করবে। ব্লক ডাউন কনফারেন্সে একটি সাক্ষাৎকারে অ্যান্থনি ট্রেঞ্চেভ বলেছেন যে প্রতি মাসে নেক্সো প্ল্যাটফর্ম বৃদ্ধি পাচ্ছে 10 শতাংশ, নতুন গ্রাহকরা ধারাবাহিকভাবে রেজিস্টার করছে, খুচরো ও সংস্থামূলক বিনিয়োগকারী, উভয়েই। এবং সংস্থাগুলির বর্ধিত অংশগ্রহণই বিকাশের চালিকাশক্তি হতে পারে। তিনি বলেছেন, ‘আমি স্বীকার করি, এটা সাহসী মন্তব্য, কিন্তু মৌলিক উপাদান এবং ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রতি মনোভাব একটু বদলালে এটা বাস্তব হতে পারে।’
    ঘটনা হল, মনোভাবের পরিবর্তন হচ্ছে তর্কহীনভাবে। 17 দেশে দ্য টোকেনিস্ট পরিচালিত সমীক্ষা অনুযায়ী, রেসপন্ডেন্টের 45 শতাংশ স্টক, রিয়েল এস্টেট ও সোনার পরিবর্তে ক্রিপ্টোকারেন্সি পেতে চান, এবং মিলেনিয়ালদের মধ্যে তাদের শেয়ার হল 92 শতাংশ।
    এবং ফলাফল, প্ল্যানবি ডাকনামের অধীনে জনপ্রিয় ক্রিপ্টানালিস্ট দ্বারা টুইটার পরিচালিত আরেকটি সমীক্ষার ফলাফলের উদ্দেশ্য ছিল 2021-এর শেষে বিটিসি-র মূল্য কী দাঁড়াবে অনুসন্ধান করা। প্রায় 27000 মানুষের সার্ভে, অধিকাংশই (53 শতাংশ) 55000 ডলার উচ্চতায় সম্মতি দিয়েছে। প্রায় 30 শতাংশ রেসপন্ডেন্ট বলেছে 100000 ডলারের কথা। এবং 17 শতাংশ বিটিসি-র 300000 ডলারে পৌঁছনোর সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়নি।
    পরের সপ্তাহের জন্য অনুমান, বিশ্লেষকদের অধিকাংশই এখনও বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়ার পিভট পয়েন্ট রূপে 9000 ডলারের পক্ষে, ওঠানামার নিম্ন সীমা 9800 ডলার, উচ্চতর – 9700 ডলার। এবং মাত্র 10 শতাংশের বিশ্বাস জোড়াটির 8400 ডলারে পতন ঘটতে পারে।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« व्यापार के मूल तत्वों को सीखना
प्रशिक्षण
प्राप्त करना
बाजार में नए हैं? प्रयोग करें “शुरूआत करना” खंड
प्रशिक्षण शुरू करें
हमारे साथ चलें (सोशल नेटवर्क में)